website-design



This time a Nepali girl came to Mymensingh in love and got married

এবার প্রেমের টানে ময়মনসিংহে এসে বিয়ের পিঁড়িতে নেপালি কন্যা

Spread the love

প্রেমের টানে নেপালি কন্যা বাংলাদেশে এসে বসলেন বিয়ের পিঁড়িতে।

জমজমাট আয়োজনে সম্পন্ন হলো বিয়ের কাজ।

শনিবার “১২ মার্চ” বরের বাড়িতে বৌভাত অনুষ্ঠিত হয় তাদের। তাঁদের শুভেচ্ছা জানাতে ছুটে আসলেন স্থানীয় সাংসদসহ বিভিন্ন স্তরের রাজনৈতিক ব্যক্তি ও এলাকাবাসী।

এমন ঘটনাটি ঘটেছে ময়মনসিংহের গৌরীপুরের সহনাটি ইউনিয়নের হতিহর গ্রামে।

জানা গেছে, হতিহর গ্রামের অবসরপ্রাপ্ত শিক্ষক নিতাই চন্দ্র পালের ছোট ছেলে পলাশ পাল পেশাগত কারণে সিংগাপুরে যান কয়েক বছর আগে।

সেখানে টিকটকের মাধ্যমে পরিচয় হয় নেপালি কন্যা অনুদেবী ভুজেলের সঙ্গে।

তিনিও সিংগাপুরের একটি প্রাইভেট কোম্পানিতে চাকরি করেন। পরিচয় থেকেই তাদের প্রণয়।

আড়াই বছরের প্রণয়ের পর বিয়ের সিদ্ধান্ত নেন তাঁরা।

এ সিদ্ধান্তে প্রথমে বাঁধ সাধেন কনের পরিবার।

ভিনদেশী ছেলের সাথে এ সম্পর্ক মেনে নিতে চাননি তাঁরা।

তবে ভালোবাসার টানে ঠেকেনি সেই আপত্তি।

গত ৭ মার্চ নেপালি কন্যা অনুদেবী চলে আসেন বাংলাদেশে।

পলাশের বড় বোন চিত্রনায়িকা জ্যোতিকা জ্যোতি ঢাকায় তাদের বিয়ের আয়োজন করেন।

শনিবার বৌভাত অনুষ্ঠানে শুভেচ্ছা জানাতে আসেন স্থানীয় সাংসদ বীর মুক্তিযোদ্ধা নাজিম উদ্দিন আহমেদ, কেন্দ্রীয় আওয়ামী লীগের বন ও পরিবেশ বিষয়ক উপ-কমিটির সদস্য মূর্শেদুজ্জামান সেলিম, জেলা পরিষদ সদস্য এইচ এম খায়রুল বাসার, সাবেক ইউপি চেয়ারম্যান আব্দুল মুন্নাফ প্রমুখ।

কনে অনুদেবী জানান, তাঁর বাবা ভারতীয় ও মা নেপালী।

তার বাবার বাড়ি ভারত পশ্চিম বঙ্গের দার্জিলিং জেলার নকশালবাড়ি।

মূলবাড়ি নেপালে। দুই বোনের মধ্যে তিনি ছোট। বড় বোনের বিয়ে হয়েছে নেপালে।

বরের বাড়ির সবাই খুব ভালো, সবাই তাকে আপন করে নিয়েছে বলে জানান তিনি।

বরের কাকা রঞ্জিত কুমার পাল বলেন, অনুদেবীকে আমরা নিজের মেয়ের মতোই বরণ করে নিয়েছি। আশা করছি পরিবারের অভাব সে বুঝতে পারবে না। পলাশের মা পূর্ণিমা রাণী পাল বলেন, আমাদের ছেলে তাকে পছন্দ করেছে, কনেকে আমাদের পছন্দ হয়েছে, সে খুব ভালো মনের মানুষ।

ইতোমধ্যেই সবাইকে আপন করে নিয়েছে।

অভিনেত্রী জ্যোতিকা জ্যোতি বলেন, আমরা চার ভাই বোনের মধ্যে পলাশ সবার ছোট। অনুদেবীকে পছন্দের বিষয়ে সে আগেই আমাদের জানিয়েছিল।

বিয়ের মাধ্যমে তাদের প্রেমের সফল পরিনয় ঘটেছে। নব দম্পত্তির জন্য সবার কাছে তিনি আশীর্বাদ কামনা করেন।

This time a Nepali girl came to Mymensingh in love and got married

Nepali girl came to Bangladesh and fell in love.

The wedding work was completed with great arrangements.

On Saturday, "March 12", the wedding was held at the groom's house. Politicians of various levels and locals, including local MPs, rushed to greet them.

Such an incident took place in Hatihar village of Sahanati union in Gauripur of Mymensingh.

It is learned that Palash Pal, the youngest son of Nitai Chandra Pal, a retired teacher from Hatihar village, went to Singapore a few years ago for professional reasons.

There, he got acquainted with Nepali girl Anudevi Bhujel through Tiktak.

He also works for a private company in Singapore. Their love is from the identity.

 They decided to get married after two and a half years of love.

The bride's family was the first to make this decision.

They did not want to accept this relationship with the foreign boy.

However, the objection did not stop the pull of love.

On March 8, Nepali girl Anudevi moved to Bangladesh.

Palash's elder sister, actress Jyotika Jyoti, arranged their wedding in Dhaka.

Local MP Bir Muktijoddha Nazim Uddin Ahmed, Central Awami League Forest and Environment Sub-Committee Member Mursheduzzaman Selim, District Council Member HM Khairul Basar, former UP Chairman Abdul Munnaf and others came to greet Bauvat on Saturday.

The bride said her father was Indian and her mother was Nepali.

His father's home was Naxalbari in Darjeeling district in West Bengal, India.

Home is in Nepal. She is the youngest of two sisters. The elder sister got married in Nepal.

He said that everyone in the groom's house is very good, everyone has adopted him.

The groom's uncle Ranjit Kumar Pal said, "We have accepted Anudevi like our own daughter." Hopefully he won't understand the lack of family. Palash's mother Purnima Rani Pal said, "Our son liked her, we liked the bride, she is a very good man."

 Already everyone has taken over.

Actress Jyotika Jyoti said, “Palash is the youngest of four siblings. He had already told us about Anudevi's choice.

Their love has been successful through marriage. He wished blessings to all for the newlyweds.